Saturday, June 17, 2006

কমিউনিস্ট জোকস্ ৭

লেনিনের আমলে সোভিয়েত ইউনিয়নের অভ্যন্তরীন নিরাপত্তা তথা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের দায়িত্ব তখন ছিলেন ফেলিক্স দ্‌জেরজিনস্কি । কেজিবি নামে সুপরিচিত প্রতিষ্ঠানের আদিরূপ একেভিডি-র উদ্যেক্তা ও প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন তিনি । আর নাদিয়া ক্রুপস্কায়া ছিলেন লেনিনের স্ত্রী ।
এক শিল্পী ছবি এঁকেছেন । ছবির নাম ‘পোল্যান্ডে লেনিন’ । ছবিতে দেখা যাচ্ছে শুধু দুজোড়া পা । এক নিরেট দর্শক প্রশ্ন করলেন, পাগুলো কার ?
-- কেন, ফেলিক্স দ্‌জেরজিনস্কি এবং নাদিয়া ক্রুপস্কায়ার । - শিল্পীর উত্তর ।
-- কিন্তু ছবির নাম তো ‘পোল্যান্ডে লেনিন’ । তা লেনিন কোথায় ?
-- আঃ এটাও বোঝেন না ? লেনিন তো পোল্যান্ডে !

পুশকিনের মূর্তি গড়া হবে । জমা পড়েছে কয়েকটি প্রজেক্ট । সেগুলো খতিয়ে দেখছেন স্তালিন ।
এক নম্বর প্রজেক্ট : পুশকিন বায়রনের লেখা বই পড়ছেন ।
-- নাঃ চলবে না, স্তালিনের মন্তব্য, কারণ ঐতিহাসিকভাবে এটা বিশ্বাসযোগ্য, কিন্তু এর মধ্যে কোথাও রাজনৈতিক বক্তব্য নেই ।
দু নম্বর প্রজেক্ট : পুশকিন স্তালিনের লেখা বই পড়ছেন ।
স্তালিন বললেন, রাজনৈতিক দিক দিয়ে এটা অবশ্যই অনুমোদনযোগ্য, কিন্তু ঐতিহাসিকভাবে ভিত্তিহীন । পুশকিনের জীবদ্দশায় আমি কোন বই লিখিনি ।
অতএব রাজনৈতিকভাবে অনুমোদনযোগ্য এবং ঐতিহাসিক দিক থেকে বিশ্বাসযোগ্য তিন নম্বর প্রজেক্টটি ছাড়পত্র পেল । মূর্তির বিষয়:
স্তালিন পুশকিনের লেখা বই পড়ছেন ।
মূর্তি নির্মিত হল । উদ্বোধনের পর দেখা গেল, স্তালিন পড়ছেন স্তালিনের লেখা বই ।

নতুন গায়ক স্টেজে গান গাইতে ওঠার আগেই নিশ্চিত ছিল, নিজের সাফল্য সম্পর্কে । সে ভেবে রেখেছিল : প্রথম গানের পর যদি হাততালি না পড়ে তাহলে লেনিনের উপর গান গাইব । তারপরেও যদি হাততালি না দেয় শ্রোতারা, তাহলে গাইব স্তালিনের উপর গান । দেখব, তখন হাততালি না দিয়ে তারা যায় কোথায়....
কোথায় আবার ? কেজিবির দপ্তরে !

টিওডর ড্রাইজার ছিলেন সমাজতন্ত্রে বিশ্বাসী আমেরিকান লেখক । জিনিয়াস, টাইটান, ফিন্যান্সিস্ট, আমেরিকা ট্রাজেডি ইত্যাদি বেশ কয়েকটি বই তিনি লিখেছিলেন । সোভিয়েত ইউনিয়নে তাঁর প্রায় সব বই-ই অনূদিত হয়ে প্রকাশিত হয়েছিল । তাঁর সম্পর্কে রসিকতা করে বলা হয় :
প্রশ্ন : টিওডর ড্রাইজার কী করে কমিউনিস্ট হলেন ?
উত্তর : তিনি প্রথমে হতে চেয়েছিলেন জিনিয়াস, কিন্তু তত মগজ ছিল না তাঁর মাথায় ; পরে তিনি হতে চাইলেন টাইটান, কিন্তু তাঁর শরীরে ছিল না তত শক্তি, ভাবলেন ফিন্যান্সিস্ট হবেন, কিন্তু টাকায় কুলোল না ; পরে তাঁর জীবনে ঘটল আমেরিকান ট্রাজেডি , ফলে তিনি হয়ে গেলেন কমিউনিস্ট ।

ইতিহাস প্রসিদ্ধ আলেকজান্ডার, জুলিয়াস সিজার এবং নেপোলিয়ন মস্কোর রেড স্কোয়ারে দেখছেন সোভিয়েত সশস্ত্র বাহিনীর শোভাযাত্রা ।
আলেকজান্ডার বললেন :
-- এরকম সোভিয়েত ট্যাঙ্ক আমার থাকলে কেউ দাঁড়াতেই পারত না গ্রিক বাহিনীর সামনে ।
জুলিয়াস সিজার বললেন :
--আমার কাছে সোভিয়েত বোমারু বিমান থাকলে গোটা দুনিয়া জয় করে নিতাম আমি ।
-- আর আমার কাছে যদি একটি পত্রিকা থাকত প্রাভদার মতো , বললেন নেপোলিয়ন বোনাপার্ট, তাহলে ওয়াটারলুতে আমার পরাজয়ের কথা বিশ্ব আজও জানতে পারত না ।

রাজনৈতিক প্রোপাগন্ডার সমাবেশ । আবেগমথিত কন্ঠে বক্তা আকাশ বাতাস কাঁপিয়ে বক্তৃতা দিচ্ছেন :
-- কমরেড, সাম্রাজ্যবাদী আমেরিকা নিউট্রন বোমা মেরে আমাদের উড়িয়ে দেবে বলে হুমকি দিচ্ছে । কমরেড, আপনারা জানেন, নিউট্রন বোমা বিস্ফোরিত হলে সব মানুষ মারা যাবে, কিন্তু আস্ত থাকবে ঘরবাড়ি, দোকানপাট - বাকি সব কিছুই । তাই, কমরেড....
শ্রোতাদের মধ্য থেকে একজন উঠে চেঁচিয়ে প্রশ্ন করলেন :
-- কিন্তু কমরেড আপনি কি বলতে পারেন, আমাদের দেশে ঠিক কোন ধরনের বোমা বিস্ফোরিত হয়েছে, যার ফলে আমরা সবাই আস্ত আছি, অথচ দোকানপাট থেকে সব কিছু উধাও ?


বুড়ো বলশেভিক বলছেন সমবয়সী প্রতিবেশীকে :
কমিউনিজম পর্যন্ত আমরা বেঁচে থাকতে পারব না । কিন্তু দুঃখ হয় ছেলে-মেয়ে, নাতি নাতনিদের জন্য !

2 comments:

Anonymous said...

এবার পশ্চিম বঙ্গের কমিউনিজম নিয়ে লেখা চাই।

Anonymous said...

Here are some links that I believe will be interested